April 20, 2021, 6:11 am

ফরিদগঞ্জে তুচ্ছ ঘটনায় বাদীর বসত ঘরে হামলা, বিবাদী পক্ষের মা ও ছেলে আহত

চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ থেকে দেলোয়ার হোসেন বেলাল :
পূর্ব শত্রæতার জের ধরে তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে সৃষ্ট সংঘর্ষের পর হত্যার চেষ্টা ও চুরির অভিযোগে দায়ের করা মামলার আসামী জেল থেকে জামিনে বেরিয়ে এলে আবার দু পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বেঁেধ যায়। এই সংঘর্ষে মা ও ছেলে আহত হয়ে বর্তমানে ফরিদগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়েছে। তবে দুই পক্ষের পরস্পর বিরোধী অভিযোগ রহস্যেজনক বলে এলাকাবাসী মনে করছে। ঘটনাটি ঘটেছে বৃহস্পতিবার ফরিদগঞ্জের সন্তোষপুর গ্রামে। এ খবর পেয়ে থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ধারালো অ¯্র উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।
হামলার শিকার পরিবারের সদস্য ও এলাকাবাসী জানায়, সন্তোষপুর গ্রামের জয়নাল আবদীন ও একই গ্রামের পাশের বাড়ির আবু তাহেরের ছেলে মানিক হোসেনের সাথে একটি তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে বিরোধ দেখা দেয়। এই বিরোধকে কেন্দ্র করে গত ১৫ মে সকালে মানিক হোসেন তারই প্রতিপক্ষ জয়নাল আবদীনের পরিবারের সদস্যদের উপর হামলা চালায়। এ হামলার অভিযোগে জয়নাল আবদীনের স্ত্রী রাহিমা বেগম বাদী হয়ে মানিক হোসেনকে প্রধান আসামী করে ৪ জনের বিরুদ্ধে থানায় একটি মামলা দায়ের করে। এ মামলার পর ১৭ মে পুলিশ উক্ত মামলার প্রধান আসামী মানিক হোসেনকে গ্রেফতার করে আদালতে পাঠায়। পরে মানিক আদালত থেকে জামিনে ছাড়া পেয়ে গতকাল বৃহস্পতিবার নিজের বাড়ি থেকে মোটর সাইকেল যোগে তার এক আত্বীয়ের বাড়ি যাওয়ার পথিমধ্যে এবার প্রতিপক্ষরা এবার মানিক হোসেনকে বেদড়ক মারধর করে বেঁধে রাখে । এ খবর শুনে মানিকের মা এগিয়ে এলে তার উপরও হামলা চালায় বলে মানিক অভিযোগ তুলেছে।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, জয়নাল আবদীনের বসত ঘরে টিনের বেড়া ধারালো অ¯্ররে আঘাতে ক্ষত বিক্ষত হয়ে আছে। এ নিয়ে এলাকায় দু পক্ষের মধ্যেই থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে।
এদিকে জয়নাল আবদীন বলেন , মানিকের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা তুলে নেয়ার হুমকি দিয়ে ধারালো অ¯্র নিয়ে মানিক হোসেন তার দলবল সহ পুনরায় আমাদের বসত বাড়িতে হামলা চালায়। এর প্রতিবাদ করতে গেলে সে আবারও জয়নাল আবদীন সহ তার কয়জন আত্বীয় স্বজনকে বেদড়ক পিটায়।
তবে হাসপাতালে ভর্তিরত মানিক হোসেন তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ওরা আমার বিরুদ্ধে মামলা দিয়ে জেলে পাঠিয়েছে। পরে আমি জামিনে মুক্তি পেলে তার আবারও আমার উপর ক্ষিপ্ত হয়ে গতকাল আমাকে মারধর করে গাছের সাথে বেঁধে রাখে। এ খবর পেয়ে আমার আত্বীয় স্বজন এগিয়ে এসে আমাকে ও আমার মাকে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠায়।
এ ঘটনার সংবাদ পেয়ে বৃহস্পতিবার বিকেলে ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে এসআই মোঃ জালাল উদ্দীন এ প্রতিনিধিকে বলেন মূলত দু পক্ষের মধ্যে পরস্পর বিরোধী অভিযোগ দিচ্ছে তার্।া তবে তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত এখন বিস্তারিত বলা যাচ্ছে না।

Please Share This Post in Your Social Media

error: Content is protected !!