May 17, 2021, 7:43 pm

News Headline :
পুরানবাজারে গলায় ফাঁস দিয়ে অটোবাইক চালকের আত্মহত্যা ফরিদগঞ্জে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালিত সাবেক চসিক মেয়র আলহাজ্ব আ জ ম নাছির উদ্দিনের সাথে আঁচলস মম কুকিং এর কর্মকর্তাদের ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় সাবেক চসিক মেয়র আলহাজ্ব আ জ ম নাছির উদ্দিনের সাথে চট্টগ্রাম মহানগর সড়ক পরিবহণ শ্রমিক লীগ নেতৃবৃন্দের ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় আত্রাইয়ে শ্রমিকলীগ নেতাকে কুপিয়ে জখম করার ঘটনায় মামলা দায়ের : মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান গ্রেপ্তার চাঁদপুরে পালিত হলো তিনদিন যাবত ঈদুল ফিতর খাগড়াছড়ির গুইমারায় ৭ম শ্রেণীর ছাত্রীর নগ্ন ভিডিও ধারণের অভিযোগে একজনকে পুলিশে সোপর্দ সাবেক চসিক মেয়র আলহাজ্ব আ জ ম নাছির উদ্দিনের সাথে ডিজিটাল আন্তর্জাতিক মানবাধিকার ফাউন্ডেশন চট্টগ্রাম বিভাগের নেতৃবৃন্দের ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় কোয়ারেন্টিনে থাকা তরুণীকে ধর্ষণের অভিযোগে পুলিশ কর্মকর্তা গ্রেফতার দখলদার ইসরায়েলের বিরুদ্ধে তুর্কিদের কঠোর অবস্থান

রোজা রেখে কিভাবে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করবেন

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে কোন ভাইরাসের সংক্রমণ এড়িয়ে চলতে হলে সর্তকতা পদক্ষেপের পাশাপাশি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে শক্তিশালী করতে হবে।
তাহলে রোজা রেখে কিভাবে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে শক্তিশালী করা যায় সেটা জানতে হলে এই লেখাটি আপনার জন্য।

১. পর্যাপ্ত পানি পান করা

-বিশেষজ্ঞরা বলছেন সুষম ডায়েট পরিকল্পনা করে রোজা রাখা হলে তা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে শক্তিশালী করে। সে ক্ষেত্রে প্রথমেই যেটি খেয়াল রাখতে হবে তা হলো দেহের চাহিদা অনুযায়ী প্রতিদিন অন্তত আড়াই থেকে তিন লিটার পানি পান করতে হবে, আর এটা করতে হবে ইফতারের পরপরই।

২. ভিটামিন সি সমৃদ্ধ খাবার বেশি খাওয়া।

• ভিটামিন সি শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে বাড়িয়ে দেয়। তাই কমলা, জাম্বুরা, লেবু জাতীয় খাবার, করলা, আমলকি, পেয়ারা এগুলোতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি আছে, এ সময় যেহেতু কমলাটা তেমন একটা পাওয়া যাচ্ছে না তাই এর বিকল্প হিসেবে পেয়ারা বা আমলকি খাওয়া যেতে পারে সেটা ইফতারে সপ্তাহে ৪ দিন রাখলে পর্যাপ্ত পরিমাণে ভিটামিন সি পাওয়া যাবে বলে আশা করা যায়।
কিন্তু বাহিরে যেহেতু যাওয়া যাচ্ছে না তাই ফলমূল পাওয়াটা বেশ ঝামেলাই হতে পারে সে ক্ষেত্রে কিভাবে পূরণ হবে ভিটামিন সি-এর চাহিদার সেটারও উপায় রয়েছে।
• অঙ্কুরিত ছোলা ভিটামিন ‘সি’ এর একটি ভালো উৎস।
– ছোলা অঙ্কুরিত করতে হলে এক রাত পানিতে ভিজিয়ে রাখতে হবে তারপর একরাত ভেজা কাপড় দিয়ে ঢেকে রাখলে ছোলা থেকে ছোট ছোট শেকড় বের হয় অর্থাৎ এটি অঙ্কুরিত হয়। তখন এটা খাওয়া যেতে পারে।

৩. রঙিন শাকসবজি খাওয়া।

• রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে শক্তিশালী করার আরেকটি ভালো উপাদান হচ্ছে- অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট।
• যেকোনো রঙিন শাকসবজিতে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট থাকে। এগুলো বাজার থেকে কিনার পর সতর্কতার অংশ হিসেবে যদি 14 মিনিট লবণপানিতে ভিজিয়ে রাখা হয় কিংবা 5 লিটার পানিতে 3 চামচ জিরকা মিশিয়ে রাখা হয় তাহলে আর কোনো ঝুঁকি থাকে না।

• খেজুরের মধ্যে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকে -এটা ইফতারিতে একটু বেশি খাওয়া যেতে পারে।

৪. জিঙ্ক, সেলেনিয়াম ও ম্যাগনেসিয়াম সমৃদ্ধ খাবার খেতে হবে।

• জিঙ্ক খুব ভালো করে পাওয়া যায় গরুর মাংস, পালংশাক, গরুর কলিজা, ছোলার ডাল, মুসুরির ডাল এগুলোতে।

– এখানে আবারও আসছে ছোলার কথা আর ছোলাতো আমাদের ইফতারিতে প্রতিদিনই থাকে তবে লক্ষ্য রাখতে হবে যে খুব বেশি তেল মশলা দিয়ে যাতে ছোলা রান্না করা না হয়।

• খুব বেশি কোলেস্টেরলের সমস্যা যদি না থাকে তাহলে সপ্তাহে দুইদিন গরুর মাংস খাওয়া যেতে পারে।

• এছাড়াও মিষ্টি কুমড়ার বিচি, বাদাম এগুলোতেও জিংক প্রচুর পরিমাণে থাকে।

• সেলেনিয়াম প্রচুর পরিমাণে পাওয়া যায়-

ইলিশ মাছ আর সরিষার দানার মধ্যে মত খাবারে। সপ্তাহে অন্তত একবার যদি এই খাবারগুলো মেনুতে থাকে তাহলে সেলেনিয়াম এর চাহিদা পূরণ হতে পারে।

৫. প্রোটিন বেশি খাওয়া চর্বি এড়িয়ে চলা।

• ছোলার ডাল, ডালের পেঁয়াজু এগুলো ইফতারে প্রচুর পরিমাণে খাওয়া হয় এগুলোতে ভালো পরিমাণে প্রোটিন থাকে, তবে এসময় ট্রান্সফ্যাট বা রূপান্তরিত চর্বি যা সাধারণত বেকারি পণ্যতে পাওয়া যায় সেগুলো এড়িয়ে চলতে হবে।

৬. কাঁচা চিনি বা সরাসরি চিনি খাওয়া এড়িয়ে চলতে হবে।

• বিশেষজ্ঞরা বলেছেন সরাসরি চিনি খাওয়া হলে তা শরীরে ভাইরাস প্রতিরোধী ক্ষমতা কিছুটা কমিয়ে দিতে পারে।

৭. টারমারিক টি বা হলুদ চা।

• পানির মধ্যে আদা, গোলমরিচের গুঁড়াে, লবঙ্গ দিয়ে ভালো করে ফুটিয়ে তার মধ্যে ১ থেকে ২ চিমটি হলুদের গুঁড়া মিশিয়ে নিতে হবে। যাদের ডায়াবেটিস নেই তারা মধু মিশিয়ে খেতে পারেন। এসব মসলায় শক্তিশালী কিছু অ্যান্টি-ভাইরাল উপাদান আছে যার কারণে এটি বিশেষ ধরনের শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে শক্তিশালী করে। ইফতারির পরবর্তী সময়টুকুতে এই চা ২-৩ বার খাওয়া যেতে পারে।
• এছাড়া ইফতারের পর নিয়মিত কুসুম গরম পানি আর লবণ মিশিয়ে গার্গল করা,
রং চা বা গরম স্যুপ খাওয়া ভাইরাস আক্রমণের এই সময়টাতে সুস্থ থাকতে সাহায্য করতে পারে।

প্রয়োজনীয় পরামর্শের জন্য যোগাযোগ।
ডাঃ মোঃ ইব্রাহিম হোসেন
বি ইউ এম এস (হামদর্দ বিশ্ববিদ্যালয়)
মোবাইল নাম্বার ০১৭১৯ ৯৩৯৫৫৩

Please Share This Post in Your Social Media

error: Content is protected !!