মোবাইল ফোন ছাড়া একদিন

বর্তমান ইন্টানেটের দুনিয়ায় পৃথিবী আমাদের সকলের হাতের মুঠোয়। আগে তথ্য আদান-প্রদান কিংবা খোজখবর নেওয়ার জন্য এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় যেতে হতো। অথবা চিঠি পাঠাতে হতো।
এখন আর তার প্রয়োজন হয় না। এর সবটায় সম্ভব হচ্ছে মোবাইলের মাধ্যমে। শিক্ষা, চাকরি, ব্যবসা, যোগাযোগ সহ সকল ক্ষেত্রে মোবাইলের ব্যবহার রয়েছে। বিভিন্ন পেশা মোবাইল ছাড়া এক দিন কেমন কাটতে পারে সেই বিষয় নিয়েই আলোচনা করবো। শিক্ষার্থীকে দিয়েই শুরু করা যাক। অনেকেরই ভোর বেলা স্কুল বা প্রাইভেট থাকে। ঠিক সময়ে ঘুম থেকে উঠতে তারা মোবাইলের অ্যালার্ম ফিচার ব্যবহার করে। যদি এক দিনের জন্য মোবাইল না থাকে তবে সেই শিক্ষার্থী স্কুল মিস করার সম্ভবনা থাকে। এরপর শিক্ষার্থীকে স্কুল, কলেজ বা ভার্সিটির নোটিশ চেক করতে হয়। বর্তমান সময়ে অধিকাংশ নোটিশ আমরা মোবাইলে বিভিন্ন গ্রুপে পেয়ে থাকি। ধরা যাক, সকালে নোটিশ দিয়েছে আজ ক্লাস বন্ধ। মোবাইল না থাকলে সেই শিক্ষার্থী নোটিশটি পাবে না।

স্কুল, কলেজ বা ভার্সিটি গিয়ে ফিরে আসতে হবে। এতে তার সময় এবং অর্থ দু’ই নষ্ট হবে। এরপর স্কুল-কলেজে গিয়ে দীর্ঘ সময় অবস্থানের ফলে বাসায় যোগাযোগ রাখতে হয়। সন্তান ঠিক মতো পৌঁছেছে কিনা, কখন ফিরবে, দুপুরে খেয়েছে কিনা এমন কত শত কৌতুহল নিয়ে বাবামা সন্তানকে কল করে থাকে। মোবাইল না থাকলে সেই সুযোগ থাকবে না। ক্যাম্পাসে গিয়ে বন্ধুদের খুঁজে পেতে প্রায় সকলেরই সমস্যা হয়। কল করে জানতে হয় বন্ধুরা কোথায় আছে। মোবাইল না থাকলে সেটিও সম্ভব হচ্ছে না। করোনার সময় শিক্ষা ক্ষেত্রে নতুন একটি দুয়ার উন্মচিত হয়েছে। যার নাম অনলাইন ক্লাস। স্কুল, কলেজ, ভার্সিটি সহ বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরিক্ষার প্রস্তুতিও এখন অনলাইন ক্লাসে হয়ে থাকে। মোবাইল না থাকলে সেখান থেকেও বঞ্চিত হতে হবে। এবার একটু ব্যবসায়ীদের দিকে আসি। ব্যবসায়ীদেও ব্যবসা সংক্রান্ত কাজে প্রতিনিয়ত যোগাযোগ রক্ষা করতে হয়। যার বেশি ভাগই হয়ে থাকে মোবাইল ফোনে। একদিনের জন্য মোবাইল না থাকলে সেদিনের ব্যবসা অনেকটায় বাঁধাগ্রস্ত হবে।
অনেক ব্যবসায়িক ব্যবসার লেনদেনের নিরাপত্তাজনিত কারণে বিকাশ, রকেট বা নগদের মতো সুবিধাগুলো ব্যবহার করে থাকে। একদিন মোবাইল না থাকলে সেই লেনদেনটিও করা সম্ভব হবে না। অনেক ক্রেতা দূর থেকে মোবাইলে টাকা পাঠিয়ে বিক্রেতা পণ্য পাঠিয়ে দেয়। মোবাইল না থাকলে এই পদ্ধতিও কাজে লাগবে না। আধুনিক ব্যবসায়ের দিকে যদি তাকায় ফুড পান্ডা, দারাজ কিংবা বিদেশ কোনো ওয়েবসাইট থেকে কেনা-কাটা করতে প্রায় সকলেই মোবাইল ডিভাইজকেই ব্যবহার করে। একদিন মোবাইল না থাকলে  আধুনিক সুবিধা থেকে বঞ্চিত হবে সাধারণ মানুষ। এবার একটু চাকরিজীবীদের দিকে নজর দেওয়া যাক। জানবার চেষ্টা করি যদি একদিন মোবাইল না থাকে তবে কি কি সমস্যায় পরবে এ পেশার মানুষ। বাংলাদেশ এবং বর্তমান বিশ্বেও প্রেক্ষাপটে কর্পোরেট জগতে সোস্যাল মিডিয়াগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি ব্যবহার করা হয় হোয়াস্ট অ্যাপ নামক অ্যাপলিকেশনটিকে।
মূলত তথ্য ও ডকুমেন্ট আদান প্রদানের জন্য অ্যাপলিকেশনটির গুরুত্ব বেশি। হাতের মুঠোয় থাকা মোবাইলফোন দিয়ে খুব সহজে কিমিউনিকেশন করা সম্ভব। এছাড়াও বিদেশী ক্লাইন্ট ম্যানেজমেন্টে যে কোনো সময় ভিডিও কল বা ই-মেইল চেক করা লাগে। যদি একদিন মোবাইল না থাকে তাহলে চাকুরী থাকবে কিনা জানি না তবে শো-কজ যে খেতে হবে তা নিশ্চিত। সবশেষ সার্বিক ভাবে যদি একদিন মোবাইল না থাকে আপনি ঠিক কি কি সমস্যায় পরতে হবে সেই বিষয়গুলো খেয়াল করি। অনেক পাঠক হয়তো এই লেখাটি ইপত্রিকায় পড়ছেন। মোবাইল না থাকলে সেটি সম্ভব হত না । আপনি সবশেষ ফেইসবুকে যে পোস্ট করেছেন বা ছবি আপলোড করেছেন সেখানে কতটা লাইক এসেছে তা জানতে পারবেন না। কতটা কমেন্ট এসেছে তা জানতে পারবেন না।

ইনবক্সে কতজন নক দিয়েছে তা জানার জন্য আপনি ব্যকুল থাকবেন। কেউ হয়তো কল করেছিল বা কেউ হয়তো এসএমএস দিয়েছে এমন চিন্তা প্রতিনিয়ত আপনার মাথায় ঘুরপাক খাবে। কখন মোবাইলহাতে পাবেন? কখন কল চেক করবেন? কখন ফেইসবুক চেক করবেন? কখন ম্যাসেন্জারের ইনবক্স চেক করবেন? এমন হাজারো প্রশ্ন আপনাকে অসহ্য যন্ত্রনা দেবে। বর্তমান সময়ে সকলেরই গুরুত্বপূর্ণ সঙ্গী মোবাইল ফোন। অনেকটা এমন, নিজে একবেলা না খেতে পেলেও সমস্যা নাই তবে মোবাইলে চার্জ আর নেট থাকতেই হবে। আজকাল ছোট বাচ্চাদের তো মোবাইল হাতে না দিলে খেতেই চায় না। সব জিনিসের ভালো দিকের পাশাপাশি খারাপ দিকও আছে। আমাদের উচিৎ খারাপ দিক হতে নিজেদের বিরত রাখা।

বার্তা প্রেরক
মো: মুছা তপদার

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আজকের দিন-তারিখ
  • সোমবার (রাত ৮:২৩)
  • ২৮শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  • ৪ঠা জমাদিউল আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরি
  • ১৩ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ (হেমন্তকাল)
পুরানো সংবাদ
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০