সোনারগাঁয়ে গ্যাস সরবরাহ বন্ধ,ভোগান্তিতে এলাকাবাসী

মাজহারুল রাসেল : সোনারগাঁও সহ বেশ কয়েকটি এলাকায় গ্যাস সরবরাহ বন্ধ রেখেছেন তিতাস গ্যাস লিমিটেড। ফলে চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন সংশ্লিষ্ট এলাকার বাসিন্দারা।
শনিবার (৫ নভেম্বর) তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের পক্ষ থেকে এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।
বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গ্যাস সঞ্চালন পাইপলাইনে জরুরি মেরামতের জন্য রোববার (৬ নভেম্বর) থেকে আগামী ১২ নভেম্বর পর্যন্ত রাজধানীর দক্ষিণ অংশের আংশিক এলাকা- জিনজিরা, কেরানীগঞ্জ, মেঘনাঘাট, সোনারগাঁও, হরিপুর, নারায়ণগঞ্জ, ফতুল্লা এবং মুন্সীগঞ্জ এলাকায় গ্যাস সরবরাহ বিঘ্ন হতে পারে।
৬ নভেম্বর সকাল থেকে গ্যাস না থাকায় গ্যাসের সিলিন্ডার কেনার ভিড় দেখা যায় সোনারগাঁয়ে গ্যাস সরবরাহ বন্ধ থাকা বিভিন্ন এলাকায়। উপজেলার মোগরাপাড়া চৌরাস্তার একটি সিলিন্ডারের দোকানে দেখা যায়, লম্বা লাইনে দাঁড়িয়ে আছেন ত্রিশ থেকে চল্লিশ জন নারী-পুরুষ।শেষ পর্যন্ত সিলিন্ডার নিয়ে বাসায় ফিরতে পারবেন কিনা সংশয় তাদের চোখে মুখে।
এসব এলাকায় সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, বাসাবাড়িতে গ্যাস সরবরাহ না থাকায় চরম বিপাকে পড়েছেন বাসিন্দারা। খাবারের দোকানে সকালের নাস্তা থেকে শুরু করে দুপুরের খাবারের জন্য লম্বা লাইনে দাঁড়াতে হচ্ছে। সুযোগ বুঝে খাবারের দোকানিরাও চড়া মূল্য হাঁকাচ্ছেন। এছাড়া অনেক দোকান আগাম প্রস্তুতি না থাকায় ক্রেতাদের চাহিদা অনুযায়ী খাবার দিতে পারছেন না।
এমন ভোগান্তিতে পড়ায় রাগে ক্ষোভে ফুঁসছেন এলাকাবাসী।তাদের এই রাগ ক্ষোভের কেন্দ্রবিন্দু তিতাস গ্যাস লিমিটেড।
ভুক্তভোগীদের অভিযোগ,গ্যাস সরবরাহ বন্ধ থাকবে,তা এলাকায় তিতাসের মাধ্যমে মাইকিং করে জানানো হয়নি।সকালে চুলা জ্বালানোর চেষ্টা করা হলে দেখা যায় গ্যাস নেই। পরে জানা যায়, ৬ দিনের জন্য গ্যাস সরবরাহ বন্ধ করেছে তিতাস গ্যাস।
তারা আরও বলছেন,কোনো ধরনের আগাম মাইকিং ছাড়া এভাবে গ্যাস বন্ধ করে দায়িত্বে চরম অবহেলা করেছে তিতাস। এর কারণে সবাই বিপাকে পড়েছেন। দোকানেও খাবার পাওয়া যাচ্ছেন না। আর যেসব দোকানে খাবার বা পানি পাওয়া যাচ্ছে দাম চাচ্ছে স্বাভাবিকের তুলনায় অনেক বেশি।
হাবিবপুর এলাকার বাসিন্দা ফজল মিয়া বলেন,সকালে রান্নার জন্য গ্যাসের চুলা জ্বালাতে গেলে দেখা যায় গ্যাস নেই। পরে তিতাস গ্যাসে ফোন দিয়ে গ্যাস সরবরাহ বন্ধের বিষয়টি জানা যায়। কিন্তু গতকাল এলাকায় গ্যাস বন্ধের মাইকিং হয়নি। আগাম নোটিশ ছাড়া গ্যাস বন্ধের কারণে অনেক ভোগান্তিতে আছি।’
মোগরাপাড়া দমদমা এলাকার বাসিন্দা সাইফুল বলেন,গতকাল সকাল থেকে গ্যাস না থাকায় বাসায় কোনো রান্নাবান্না হয়নি। আর বাসার আশপাশেও কোনো খাবারের দোকান নেই। সব মিলিয়ে বাচ্চাকাচ্চা নিয়ে চরম ভোগান্তিতে আছি। সকালে কলা-রুটি খেয়ে অফিসে আসতে হয়েছে আর বাচ্চাদের টিফিন ছাড়াই স্কুলে পাঠাতে হয়েছে।’
বৈদ্যের বাজার এলাকার বাসিন্দা সোহেল  বলেন,গতকাল সকাল থেকে গ্যাস নেই তা দেখে মাথায় হাত। পরে দোকানে খাবার কিনতে গিয়ে আবারও চরম ভোগান্তি। প্রতিটি খাবারে দোকানিরা ১০-১৫ টাকা দাম বাড়িয়ে দিয়েছে। দোকানিরা বলছেন,এ দামে নিলে নেন না হলে চলে যান।’
আরও বেশ কয়েকটি এলাকার বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, তিতাস গ্যাসের এমন আচরণ নতুন কিছু নয়। তারা এর আগেও একাধিক বার এমন আচরণ করেছে। গ্রাহকদের আগাম কোনো সতর্কতা ছাড়াই তারা গ্যাস সরবরাহ বন্ধ করে দিয়েছে। এর ফলে গ্রাহকদের সীমাহীন ভোগান্তি পোহাতে হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আজকের দিন-তারিখ
  • শনিবার (দুপুর ১২:৪২)
  • ৩রা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  • ৯ই জমাদিউল আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরি
  • ১৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ (হেমন্তকাল)
পুরানো সংবাদ
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১