January 22, 2022, 9:40 pm

News Headline :
যেখানে-সেখানে ময়লা-আবর্জনা না ফেলে নির্দিষ্ট স্থানে ফেলার অভ্যাস করি- চেয়ারম্যান প্রিয়তোষ চৌধুরী ইবিকে বাস উপহার দিলো অগ্রণী ব্যাংক করোনায় ১৭ জনের মৃত্যু, শনাক্তের হার ২৮.০২ মতলব উত্তরে নিশ্চিতপুর কল্যাণমূলক সংগঠনের শীতবস্ত্র বিতরণ ছেংগারচর পৌর আওয়ামী লীগের শীতার্তদের কম্বল বিতরণ ফরাজীকান্দি ইউপি’র চেয়ারম্যান ইঞ্জি. রেজাউল করিমের দায়িত্ব গ্রহন ও শোকরানা মিলাদ হাজীগঞ্জে দেয়াল চাপা পড়ে শ্রমিকের মৃত্যু চিলমারীতে স্বতন্ত্র প্রার্থী ও আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীদের মাঠে-ঘাটে চলছে দৌড় ঝাপ। শেরপুরে যুব সংস্থার উদ্যোগে শীতবস্র ও খাতা-কলম বিতরণ সোনারগাঁয়ে ভয়ঙ্কর হয়ে উঠছে কিশোর গ্যাং কালচার

ইতিহাসের নির্মাতা তিন এমপি’র সংবর্ধনা প্রেসক্লাবে

একদিন সময় আমাদের দরজায় কড়া নেড়েছিলো সেদিন আমরা সময়ের ডাকে সাড়া দিয়েছিলাম, সেটা ইতিহাস হয়ে গেলো। আমরা ষাটের দশকের কথা বলছি। সেই সময় অনেক কিছু হয়েছিলো। ছাত্র আন্দোলন, ফাতেমা জিন্নাহর নিবার্চন, বঙ্গবন্ধুর ৬ দফা আন্দোলনের জন্য আন্দোলন, আগরতলা মামলা বাতিলের জন্য আন্দোলন, ৬৯’র গণঅভ্যুত্থানে আয়ুবের পতন অবশেষে তারা ১৯৭০ সালে নিবার্চন দিতে বাধ্য হলো। পাকিস্তানের ইতিহাসে প্রথম বারের মতো প্রাপ্ত বয়স্কদের ভোটাধিকারের ভিত্তিতে এক ব্যক্তি এক ভোটের নীতিতে প্রথম সাধারণ নির্বাচন হলো। আওয়ামী লীগ পাকিস্তান পার্লামেন্টে একক সংখ্যাগরিষ্ঠ দল হিসেবে আত্মপ্রকাশ করলেন। সেটাই আমাদের স্বাধীনতার ভিত্তি। আজকে আমরা যাঁরা সংবর্ধনা নিচ্ছি, আমরা সে নিবার্চনে অংশগ্রহণ করে বিজয়ী হয়েছিলাম। এরপর ইতিহাস সৃষ্টি হচ্ছিল। বাঙালি একটি জাতিসত্ত্বা হিসেবে গড়ে উঠেছিলো এবং জাতিসত্ত্বায় আত্মাপ্রকাশের আত্মসংগ্রাম স্বাধীনতার চেতনা জাগ্রত হলো। বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতার ডাক দিলেন। আমরা ইতিহাসের অংশ হয়ে গেলাম। আজকে আমাদের সম্মানে এই সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করে যে বিরল সম্মানে ভূষিত করেছেন সেজন্য আমরা কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানাই। স্বাধীতনার পর এই ধরণের কোন অনুষ্ঠান আমরা দেখিনি। আপনাদের এই আয়োজন একটি ব্যতিক্রমি অনুষ্ঠান হিসেবে চি‏িহ্নত হয়ে থাকবে ইতিহাসের পথ পরিক্রমায়।
গতকাল শনিবার চট্টগ্রাম প্রেস কাবের বঙ্গবন্ধু হলে ‘মূলধারা ৭১’ সংগঠনের উদ্যোগে ১৯৭০ সালের নিবার্চনে বিজয়ী তিন এমপি’র সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে অন্যতম সংবর্ধিত ব্যক্তিত্ব বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য সাবেক মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন এম.পি এসব কথা বলেন। সংবর্ধিত অন্য দুই এমপি’রা হলেন আবু ছালেহ এম.এন.এ (সাতকানিয়া) ও মির্জা আবু মনসুর এম.পি.এ (ফটিকছড়ি)। ‘মূলধারা ৭১’ এর সভাপতি সাংবাদিক ও বীর মুক্তিযোদ্ধা নাসিরুদ্দীন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত উক্ত সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখনে সংবর্ধিত ব্যক্তিত্ব আবু ছালেহ, মির্জা আবু মনসুর, চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এম.এ সালাম, চসিক প্রশাসক আলহাজ্ব খোরশেদ আলম সুজন, চট্টগ্রাম প্রেস কাবের সভাপতি আলি আব্বাস, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান, চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ আতাউর রহমান, বীর মুক্তিযোদ্ধা ও গবেষক ডা: মাহফুজুর রহমান, উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জসিম উদ্দিন শাহ, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শামীমা হারুণ লুবনা, চট্টগ্রাম প্রেস কাবের সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী ফরিদ, মহানগর আওয়ামী লীগ নেতা জামশেদুল আলম চৌধুরী, বীর মুক্তিযোদ্ধা কিরণ লাল আচার্য্য। বাচিক শিল্পী দিলরুবা খানম ছুটির সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানের প্রারম্ভে সংবর্ধিত তিন অতিথিকে পুষ্পার্ঘ, ক্রেস্ট, সম্মাননা ও উত্তরীয় পরিয়ে দেওয়া হয়। অনুষ্ঠানের শুরুতে রবীন্দ্র সংগীত শিল্পী শিলা চৌধুরী পর পর কয়েকটি গান গেয়ে ¯্রােতাদের মুগ্ধ করেছেন।
ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন ১৯৬৯ সালে কক্সবাজারে তাঁর পিতার হোটেল সায়মনে বঙ্গবন্ধুর সম্মানে তাঁর আয়োজিত একটি ক্যান্ডেল লাইট ডিনারের কথা স্মরণ করে বলেন, তোরা আমাকে ১৫১টা সিট এনে দে, আমি দেখাইয়া দিব। তিনি জিজ্ঞেস করেছিলেন তোরা মৌলভী ফরিদ কে ডিফেট দিতে পারবি তো ? এরপর জনাব মোশাররফ ও মির্জা মনসুর স্বাধীন বাংলা বেতারে মেজর জিয়াকে নাটকীয় ঘটনা অবতারনা, তাঁদের মুক্তিযুদ্ধে যোগদান এবং সামরিক ভবনে ট্রেনিং গ্রহণ করে যুদ্ধের অভিজ্ঞতা বর্ণনা করে

Please Share This Post in Your Social Media

error: Content is protected !!