December 8, 2021, 3:57 am

কচুয়ায় ভ্যাপসা গরমে তালের শাঁসের কদর বেড়েছে

সুজন পোদ্দার, কচুয়া ॥
প্রচ- গরমে তালের শাঁস খাওয়ার হিড়িক পড়েছে কচুয়ার হাট-বাজারসহ সকল জনপদে। প্রচ- তৃষ্ণার্ত লোকজন তালের শাঁস কিনতে হুমড়ি খেয়ে পড়ছে তালের লেপা বিক্রেতাদের দোকানে। তৃষ্ণা মিঠাতে তালের শাঁস উত্তম বলে মনে করছে ঘর্মাক্ত লোকজনরা। প্রতিটি তালের লেপা বিক্রি হচ্ছে ১৫ থেকে ২০ টাকা ধরে। লেপার ভালো দাম পেয়ে তালের লেপা বিক্রেতারা গ্রামগঞ্জে ঘুরে ঘুরে তাল গাছের মালিকদের সাথে কথা বলে গড়ে লেপা প্রতি ৭ থকে ৮ টাকা মূল্য দিয়ে ক্রয় করে নিচ্ছে। এতে তাল গাছের মালিকরাও তালের লেপা বিক্রি করে বেশ লাভবান হচ্ছে। কচুয়ার হাটবাজারে উল্লেখ্যযোগ্য সংখ্যক ব্যবসায়ীর লেপা বিক্রির দৃশ্য সকলেরই নজর কাড়ছে। উপজেলার বিভিন্ন হাটবাজারে লেপা বিক্রির একই রকম দৃশ্য দেখা যাচ্ছে।
এদিকে কেবল হাটাবাজারের ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে তালের লেপা কিনে শাঁস খেয়ে লোকজনরা তৃপ্তির ঢেকুর তোলার পাশাপাশি গ্রামের বাড়িতে মেহমানদারীতেও চলছে চা, সরবত ইত্যাদির পরিবর্তে তালের শাঁস পরিবেশন।
লেপা বিক্রেতা কড়ইয়া গ্রামের বলাই দাস, নুরপুর গ্রামের মিজানুর রহমান, মনপুরা গ্রামের ইসমাইল হোসেন বিপ্লব জানান, করোনা পরিস্থিতিতে আমরা বেকার হয়ে পড়লেও তালের লেপা বিক্রি করে প্রতিদিন ৭শ থেকে ৮ শ টাকা উপার্জন করতে সক্ষম হচ্ছি।
গুলবাহার গ্রামের শাহজাহান খান, কোয়া গ্রামের রফিক মিয়া, কচুয়া পৌরবাজারের ব্যবসায়ী সেলিম ও পাড়াগাও গ্রামের সফিক জানান, ভ্যাপসা গরমে তৃষ্ণার্ত হয়ে তালের শাঁস খেয়ে আমরা যে তৃপ্তি পাচ্ছি অপর কোন পানীয় খেয়ে এরূপ তৃপ্তি পাচ্ছি না।
কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতলের সহযোগী অধ্যাপক ডা. আব্দুল মান্নান ও শাহরাস্তি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ডা. গোলাম মাওলা (নঈম) জানান, তালের শাঁসে প্রচুর পরিমাণে সোডিয়াম, আয়রন, ক্যালসিয়াম ও খনিজ লবনসহ বেশকিছু ভালোমানের খাদ্য উপাদান রয়েছে। যা মানুষের স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী। তবে বেশি মাত্রায় তালের শাঁস খাওয়া উচিত নয়, কেননা শাঁস খেলে গ্যাস বৃদ্ধি পায়।

Please Share This Post in Your Social Media

error: Content is protected !!