September 17, 2021, 9:56 pm

News Headline :
মতলব উত্তরে দি ইনভিন্সিবল ব্যাচ ৯/১১ প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত ফিনল্যান্ডে পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী করোনা ভাইরাসে আরও ৩৮ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১৯০৭ কুয়াকাটাকে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন স্বপ্ন নিয়ে কাজ করছে বিডি ক্লিন কুয়াকাটা টিম সোনারগাঁয়ে অজ্ঞাত মহিলার লাশ উদ্ধার চাঁদপুর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় হাজীগঞ্জে স্হাপনের দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত ভারতীয় সহকারি হাইকমিশনারকে মাস্ক উপহার দিলেন জেলা সমিতি কফি ও কাজুবাদামের চারা বিতরণ উদ্বোধন করলেন -কৃষিমন্ত্রী রাউজান প্রেসক্লাবে জিয়াউল হক মাইজভাণ্ডারীর ট্রাস্ট প্রকাশিত গ্রন্থ হস্তান্তর নওগাঁয় দুইশত পিস ইয়াবা ট্যাবলেটসহ দু’জনকে আটক করেছে ডিবি পুলিশ

পলাশে লকডাউন ও সামাজিক দূরত্ব মানছেননা অনেকেই

সাব্বির হোসেন, নিজস্ব প্রতিবেদক :
করোনাভাইরাস প্রতিরোধে (৯ এপ্রিল) বৃহস্পতিবার থেকে নরসিংদী জেলা লকডাউন হলেও পলাশ উপজেলায় প্রথম দিনই সাধারণ মানুষ লকডাউন কিংবা সামাজিক দূরত্ব মানছেন না। বিভিন্ন অজুহাত নিয়ে রাস্তায় বের হয়েছেন অনেকেই। আবার প্রধান সড়কেও পুলিশের চোখকে ফাঁকি দিয়েই বেড়ে চলছে যানবাহন। এমন অবস্থা চলতে থাকলে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ করতে গিয়ে পরিস্থিতি খারাপ হতে পারে এমন শঙ্কা অনেকেরই। মানুষের মাঝে সচেতনতা বাড়াতে স্থানীয় এমপি আলহাজ্ব ডাঃ আনোয়ারুল আশরাফ খান দিলীপ, উপজেলা চেয়ারম্যান সৈয়দ জাবেদ হোসেন, পলাশ উপজেলা প্রশাসনের নির্বাহী কর্মকর্তা (অ.দা.) ফারহানা আলী, পৌর মেয়র আলহাজ্ব শরীফুল হক, পলাশ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ নাসির উদ্দিন, ঘোড়াশাল ফাঁড়ি ইনচার্জ পুলিশ পরিদর্শক মোঃ জহিরুল আলমসহ আরো অনেকেই করোনা প্রতিরোধ জনসচেতনতা বাড়াতে কাজ করে যাচ্ছেন। দরিদ্র মানুষকে ঘরে রাখতে ত্রাণ বিতরণ অব্যাহত রেখেছেন। এসবের পরেও ঘরের বাহির হওয়া মানুষদের ঠেকানো যাচ্ছে না। বর্তমানে বাংলাদেশ করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ৩৩০ এবং মৃত্যু ২১জন। এদের মধ্যে পলাশ উপজেলাসহ নরসিংদী ও রায়পুরায় ৪জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। বাংলাদেশর মতো এমন চিত্র ইতালি, স্পেন ও যুক্তরাষ্ট্রসহ অনেক দেশেরই ছিল। কিন্তু আজ তাদের দেশগুলোতে হাজার হাজার মানুষ করোনায় মৃত্যুবরণ করছে। যা এখনও অব্যাহত রয়েছে। এমনটা এদেশে নাও হতে পারে তবে হবে না সেই নিশ্চয়তা কে দিবে। অথচ কেমন চলছে আমাদের লকডাউন।
পলাশের এক বাসিন্দা বলেন, অনেক দিন ধরেই ঘরে এক ধরণের বন্দিজীবন পার করছি। ঘরে থাকতে থাকতে শরীর জ্যাম হয়ে গেছে তাই একটু বেরিয়েছি হাঁটতে এবং বাহিরের পরিস্থিতি সম্পর্কে জানতে।
প্রাণআরএফল (পিআইপি) এর শ্রমিক জানান, আমরাও চাই সরকারের দেয়া নিয়ম অনুযায়ী ঘরে থাকতে। কিন্তু কারখানা খোলা থাকায় কাজ করতে হচ্ছে। কাজ শেষে বাসায় ফিরতে বের হয়েছি রাস্তায়। আরও অনেকেই বিভিন্ন অজুহাত দেখিয়ে রাস্তায় বের হয়েছে।
এ যেনো করোনা ভাইরাসকে বুড়ো আঙ্গুল দেখিয়ে বীর দর্পে এগিয়ে চলা। বিকেল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত চলছে দলবেঁধে হাটাহাটি। রাস্তায় ছিল ব্যক্তিগত গাড়ি আর মটরসাইকেলের আনাগোনা। এমন পরিস্থিতি সম্পর্কে জানতে চাইলে পলাশ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ নাসির উদ্দিন জানান, করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে উপজেলার প্রধান প্রধান সড়ক ও গ্রাম মহল্লায় গিয়ে মানুষের মাঝে জনসচেতনতা বাড়াতে
দিনরাত পরিশ্রম করে যাচ্ছে পলাশ থানা পুলিশ। সরকারের দেয়া স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলার জন্য চালিয়ে যাচ্ছে অভিযান ও প্রচারণা। সবার সহযোগিতা ছাড়া করোনাভাইরাস প্রতিরোধ আইনশৃঙ্ক্ষণা রক্ষাকারী বাহিনীর একার পক্ষে সম্ভব নয়। তাই সবাইকে অনুরোধ জানাই জরুরি প্রয়োজন ছাড়া কেউ যেন ঘরের বাহির না হয়।
এদিকে করোনা মোকাবিলায় ঘরে থাকার নির্দেশনা মানাতে আরো কঠোর হবার পরামর্শ দিয়েছেন অনেকেই

Please Share This Post in Your Social Media

error: Content is protected !!