January 16, 2022, 6:28 pm

News Headline :
১হাজার শীতার্তদের মাঝে মোতাহার হোসেন এমপি’র শীতবস্ত্র বিতরণ ছিনতাইকারীর ছুরিকাঘাতে সেনা সদস্য নিহত মতলব উত্তরে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন মতলব উত্তরে মুক্তিযোদ্ধা মেমোরিয়াল হাসপাতাল এর উদ্বোধন আজ বীর মুক্তিযোদ্ধা এডভোকেট বিনয় ভূষন মজুমদারের শুভ জন্মদিন। হাইমচর উপজেলা পরিষদের সেবা নিয়ে অসহায় মানুষের পাশে থাকবো …… চেয়ারম্যান নূর হোসেন পাটওয়ারী নারায়ণগঞ্জ সিটিতে উৎসবমুখর ভোট, ফলের অপেক্ষা করোনার দৈনিক শনাক্ত ৫ হাজার ছাড়াল নির্বাচন কমিশন গঠন বিষয়ক মহামান্য রাষ্ট্রপতি বরাবর এনডিএম-এর প্রস্তাবনা বিদ্যালয়ের পাশে খড়ি দিয়ে চলছে অনুমতি বিহীন অবৈধ ইট ভাটা, ঘুমিয়ে রয়েছেন পরিবেশ অধিদপ্তর ও প্রশাসন সমাজ পরিবর্তনের অনেক বার্তা পেয়েছি এই কবিতার মাধ্যমে – আসাদুজ্জামান নুর এমপি

ফুট ব্রিজের এপ্রোচ ও গাইডওয়াল নির্মাণের দাবি

জামালপুর সদর উপজেলার কেন্দুয়া ইউনিয়নের মৌহাডাংগায় ফুট ব্রিজের এপ্রোচ ও গাইডওয়াল নির্মাণের দাবিতে মানববন্ধন করেছে এলাকাবাসী। সেই সাথে মানববন্ধনে এই ব্রিজের বরাদ্দকৃত এডিপির অর্থ আত্মসাতের সাথে জড়িতদের শাস্তিরও দাবিতে জানানো হয়।

সোমবার (২৩ নভেম্বর) দুপুরে মৌহডাংগা এলাকায় গবাখালী খালের পাশে এলাকাবাসীর ব্যানারে এই মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়।

মানববন্ধনে এলাকাবাসীর পক্ষে বক্তব্য দেন মৌহাডাংগা গ্রামের রফিকুল ইসলাম, উজ্জ্বল মিয়া ও মো. মাহাতাব উদ্দিন বক্তব্য রাখেন।

ওই গ্রামের শতাধিক নারী-পুরুষের অংশগ্রহণে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে বক্তারা জানান, ২০১৫ সালে মৌহাডাংগা গ্রামের গবাখালী খালের উপর ১২ মিটার একটি ফুট ব্রিজ নির্মাণ করা হয়। নির্মাণের পর ২০১৬-১৭ অর্থ বছরে সেই ব্রিজের এপ্রোচ ও গাইড ওয়াল নির্মাণের জন্য এডিপির আওতায় ৩ লাখ ৪০ হাজার টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়। বরাদ্দের ৪ বছরেও সেখানে কোনো এপ্রোচ ও গাইড ওয়াল নির্মাণ করা হয়নি। কোনো একটি মহল এই অর্থ আত্মসাৎ করেছেন বলে দাবি করেন বক্তারা।

তারা আরও বলেন, মৌহাডাংগা ছাড়াও আশেপাশের ৩ টি গ্রামের ৬/৭ হাজার লোক এ ব্রিজের ওপর দিয়ে যাতায়াত করেন। স্কুল ও কলেজগামী ছাত্রছাত্রীরাও সীমাহীন দুর্ভোগের মধ্যেই এ পথে স্কুল-কলেজে যায়। কৃষিজাত পণ্যও পরিবহবন হয় এ পথেই। চলাচলের উপযোগী রাস্তা না থাকা এবং ব্রিজটির দু পাশে এপ্রোচ নির্মাণ না করায় আশেপাশের ৩টি গ্রামের লোকজনদের স্কুল-কলেজ, শহর-বন্দর ও হাটবাজারে যাতায়াতে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয়।

এ বিষয়ে জামালপুর সদর উপজেলা প্রকৌশলী মোহাম্মদ রমজান আলী বলেন, “আমি এক বছর হলো যোগদান করেছি। এখন পর্যন্ত এ বিষয়ে কেউ আমার কাছে কোনো অভিযোগ করেনি। তাই বিষয়টি আমার জানা নেই। তবুও আমি খোঁজ নিয়ে বিষয়টি সমাধানের চেষ্টা করবো।”

Please Share This Post in Your Social Media

error: Content is protected !!