ইতালিকে হারিয়ে আর্জেন্টিনা চ্যাম্পিয়ন

নিউজ ডেস্ক ; ওয়েম্বলি স্টেডিয়ামে বৃহস্পতিবার ইতালিকে ৩-০ গোলে হারিয়ে ফিনালিসিমার শিরোপা জিতেছে আর্জেন্টিনা। খেলার প্রথমার্ধেই ২-০ গোলে এগিয়ে ছিল আর্জেন্টিনা। বৃহস্পতিবার ইতালির বিপক্ষে গোল তিনটি করেন লাওতারো মার্টিনেজ , ডি মারিয়া ও পাওলো দিবালা। প্রথমার্ধে লাওতারো মার্টিনেজ ও ডি মারিয়ার গোলে এগিয়ে যায় আর্জেন্টিনা। এরপর দ্বিতীয়ার্ধে ব্যবধান ৩-০ করেন পাওলো দিবালা।
ফিনালিসিমা, ইউরোপ এবং লাতিন আমেরিকা মহাদেশের চ্যাম্পিয়নদের এক অনন্য দ্বৈরথের নাম। ১৯৮৫ এবং ১৯৯৩ সালে দুবার অনুষ্ঠিত হয়েছিল এই ম্যাচটি, তখন এটি আরতেমিও ফ্রাঞ্চি ট্রফি নামে পরিচিত ছিল। প্রথমবার ফ্রান্স এবং দ্বিতীয় আসরে আর্জেন্টিনা শিরোপা জয় করেছিল। দীর্ঘ ২৯ বছর পর ফের অনুষ্ঠিত হল এই আন্তঃমহাদেশীয় মহারণ। আরতেমিও ফ্রাঞ্চি ট্রফি থেকে এখন এই শিরোপার নাম কনমেবল-উয়েফা কাপ অব চ্যাম্পিয়ন্স, সংক্ষেপে যাকে ফিনালিসিমা বলা হচ্ছে।ইংল্যান্ডের ওয়েম্বলি স্টেডিয়ামে এই শিরোপার লড়াইয়ে ইউরো চ্যাম্পিয়ন ইতালিকে হারিয়ে শিরোপা জিতেছে কোপা আমেরিকাজয়ী আর্জেন্টিনা।
এদিন আর্জেন্টিনা কোচ লিওনেল স্কালোনি ৪-২-৩-১ ফর্মেশনে একাদশ সাজান। তবে চোটের কারণে আর্জেন্টিনার একাদশে ছিলেন না মার্কোস আকুনইয়া। চোট থেকে পুরোপুরি সেড়ে না ওঠায় শুরু একাদশে ছিলেন না লিয়ান্দ্রো পারেদেস। ইতালি কোচ রবার্তো মানচিনি একাদশ সাজান ৪-৩-৩ ফর্মেশনে।
প্রথমার্ধের ২১ মিনিটের সময় ডি-বক্সের সামনে ফ্রি কিক পায় ইতালি। তবে ফ্রেদ্রিকো বার্নাদেসচির নেওয়া জোরালো ফ্রি কিক সহজে গ্লাভসে জড়ান আর্জেন্টিনা গোলরক্ষক এমিলিয়ানো মার্টিনেজ।
২৮ মিনিটে লাওতারো মার্টিনেজের গোলে এগিয়ে যায় আর্জেন্টিনা। লিওনেল মেসি বক্সের বামপাশ থেকে বল টেনে বাঁ পায়ে ছয় গজ বক্সে বল বাড়ালে ডান পায়ে সহজেই তা জালে জড়ান ইন্টার মিলানের ফরোয়ার্ড লাওতারো মার্টিনেজ।
এরপর প্রথমার্ধের যোগ সময়ের প্রথম মিনিটে লওতারো মার্টিনেজের দারুণ এক পাসে বক্সের মাঝে গোলরক্ষককে একা পেয়ে ব্যবধান ২-০ করেন আনহেল ডি মারিয়া।
দ্বিতীয়ার্ধের খেলায় ৫৬ মিনিটে নিজেদের ভুলে গোল খেতে বসেছিল ইতালি। বক্সের মধ্যে গোলরক্ষক জিয়ান লুইজি দোনেরুম্মাকে লক্ষ্য করে পাস দেন সেন্টারব্যাক বেনুচ্চি। দোনেরুম্মা প্রথমে বল রিসিভ না করতে পারলেও পরে গোললাইনের কাছে থেকে কোনরকমে ঠেকিয়ে দেন।
৬৯ মিনিটে লাওতারো মার্টিনেজের পাস থেকে বল পেয়ে বক্সে ঢুকে শট নেন মেসি। কিন্তু এবার তার শট ডানপাশে ঝাঁপিয়ে ঠেকিয়ে দেন দোনেরুম্মা।
৭৪ মিনিটে বক্সের একদম সামনে থেকে মেসির নেওয়া বাঁ পায়ের ফ্রি-কিক পোস্টের ওপর দিয়ে চলে যায়। এরপর ৮১ ও ৮৩ মিনিটে আরো দুইবার ব্যবধান বাড়ানোর সুযোগ তা কাজে লাগাতে পারেনি আর্জেন্টিনা।
দ্বিতীয়ার্ধের যোগ করা সময়ের ৪ মিনিটে লিওনেল মেসির সহায়তায় জালে বল জড়িয়ে ব্যবধান ৩-০ করেন পাওলো দিবালা।
শেষ পর্যন্ত ৩-০ গোলের জয় নিয়েই শেষ হাসিটা হাসলো দক্ষিণ আমেরিকার দলটি। দুই মহাদেশের শ্রেষ্ঠত্বের লড়াইয়ে জয় পেল দক্ষিণ আমেরিকা।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আজকের দিন-তারিখ
  • রবিবার (রাত ১২:০২)
  • ১৪ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • ৮ই মহর্‌রম, ১৪৪৬ হিজরি
  • ৩০শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ (বর্ষাকাল)
পুরানো সংবাদ
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১