ফুলবাড়ীতে করোনার চতুর্থ ডোজ গ্রহনে আগ্রহ কম

 

মেহেদী হাসান,ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) প্রতিনিধি:
দেশব্যাপী কোভিড-১৯ এর ভ্যাকসিন দ্বিতীয় বুষ্টার/চতুর্থ ডোজ প্রদান কার্যক্রম শুরু হলেও দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় ডোজের তুলনায় চতুর্থ ডোজ গ্রহণে তেমন আগ্রহ নেই বললেই চলে। টিকা গ্রহণের ব্যাপারে নেই কোন প্রচার প্রচারনাও।
সংশ্লিষ্ট সুত্রে জানা গেছে,করোনা মহামারির বৈশ্বিক পরিস্থিতি বিবেচনা করে ২০২২ সালের ২০ ডিসেম্বর থেকে সরকার জনগণকে দ্বিতীয় বুষ্টার/চতুর্থ ডোজ প্রদানের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে। দ্বিতীয় বুষ্টার/চতুর্থ ডোজ গ্রহণের ক্ষেত্রে ৬০ বছর এবং তদ‚র্ধ বয়সি দির্ঘ মেয়াদী রোগে আক্রান্ত ১৮ বছর বয়সি, স্বল্প রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা সম্পন্ন জনগোষ্ঠী এবং গর্ভবতী মহিলা ও দুগ্ধদানকারী মা ও সম্মুখ সারির যোদ্ধারা এই ডোজ গ্রহণের অগ্রাধিকার পাবে। সেই সাথে তৃতীয় ডোজ প্রাপ্তির পর চার মাস অতিবাহীত হয়েছে এমন ব্যক্তিকে এই ডোজ প্রদান করা যাবে। কিন্তু দ্বিতীয় বুষ্টার/চতুর্থ ডোজ প্রদান কার্যক্রম শুরুর এক মাস অতিবাহিত হলেও দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে মাত্র ১ শতাংশ লোক এই ডোজ গ্রহণ করেছেন।
এদিকে স্বাস্থ্য অদিপ্তদপ্তরের স্মারক নং-স্বাঃঅধিঃ/ইপিআই/ইপিআই এ্যান্ড সার্ভিল্যান্স/কোভিড-১৯/২০২২/২৭০ স্মারকে ১১ডিসেম্বর ২০২২ তারিখের চিঠিতে নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে, দ্বিতীয় বুষ্টার/চতুর্থ ডোজ প্রদানের ক্ষেত্রে প্রচার প্রচারনার জন্য টিকা কেন্দ্র গুলোতে বুথের বাহিরে দৃশ্যমানস্থানে নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় ব্যানার তৈরী ও প্রদর্শনের নির্দেশনা দেওয়া থাকলেও স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে দেখা মেলেনি।
ফুলবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স স‚ত্রে জনা গেছে, ২০২০ সালের ১৫ এপ্রিল প্রথম করোনা রোগী সনাক্ত হয় এই উপজেলায়। ওই বছরের ২০ জুন থেকে করোনা পরীক্ষা নিরীক্ষা শুরু হয়; যা ২০২২ সালের ২২ অক্টোবর পর্যন্ত চলে। বর্তমানে পরীক্ষা নিরীক্ষার কার্যক্রম চলামান থাকলেও কেউ আর পরীক্ষা করতে আসে না। উপজেলায় সর্বমোট করোনা পরীক্ষা করেছে ১ লাখ ৮৬ হাজার ৮৮২ জন। আক্রান্তের সংখ্যা ৪ হাজার ৭৮১ জন। সুস্থ্য হয়েছে ৪ হাজার ৫৫০ জন। এর মধ্যে মৃত্যু বরণ করেছে ১৪ জন।
সুত্র মতে, চলতি বছরের ২৫ জানুয়ারী পর্যন্ত এ উপজেলায় করোনার প্রথম ডোজ টিকা গ্রহণ করেছেন ১ লাখ ৭৫ হাজার ৪১৭ জন। দ্বিতীয় ডোজ গ্রহণ করেছে ১ লাখ ৫৫ হাজার। তৃতীয় ডোজ গ্রহণ করেছে ৯৩ হাজার ৩৯৯ জন। দ্বিতীয় বুষ্টার/চতুর্থ ডোজ গ্রহণ করেছে ১ হাজার ৪৯৯ জন। যা এই উপজেলার মোট জনসংখ্যায় শতাংশে প্রথম ডোজ ৯২ শতাংশ, দ্বিতীয় ৮০ শতাংশ, তৃতীয় ৪৮ শতাংশ এবং দ্বিাতীয় বুষ্টার/চতুর্থ ডোজ মাত্র ১ শতাংশ।
মেডিকেল টেকনোলজিস্ট ইপিআই সাইফুল ইসলাম বলেন,বর্তমানে ফাইজার বায়োটেক,ফাইজার কমিনিটি ও সিনোফার্মা টিকা দেয়া হচ্ছে।
স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স টিকা কেন্দ্রে ২৫জানুয়ারী পর্যন্ত দ্বিাতীয় বুষ্টার/চতুর্থ ডোজ দেয়া হয়েছে ১হাজার ৪৯৯ডোজ। গড়ে প্রতিদিন ৪০-৫০জন টিকা গ্রহন
করছেন। বর্তমানে টিকা মজুদ রয়েছে ৪হাজার ৫শ ডোজ।
উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিকল্পনা কর্মকর্তা মো. মশিউর রহমান বলেন,বর্তমানে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রতিদন সকাল ৯টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত প্রথম, দ্বিতীয়, তৃতীয় ডোজের পাশাপাশি দ্বিতীয় বুষ্টার/চতুর্থ ডোজ প্রদান করা হচ্ছে। কিন্তু অন্যান্য ডোজের তুলনায় চতুর্থ ডোজ গ্রহণে মানুষের আগ্রহ খুব কম। তিনি বলেন, বর্তমানে সাধারণ মানুষ মনে করছে এখন করোনা নেই তাই টিকা দিয়ে কী হবে। সেকারণে হয়ত টিকা গ্রহণের আগ্রহ কম। অথচ টিকা গ্রহণের জন্য মাইকিং করা হয়েছে কিন্তু লোকজন আসছে না।
তিনি আরও বলেন, করোনা আবারও নতুন করে সংক্রামন ছড়াতে পারে তাই সকলকে সচেতন হতে হবে এবং সরকার বিনামুল্যে টিকা প্রদান করছেন তা গ্রহণ করতে হবে।

প্রেরক
মেহেদী হাসান
ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) প্রতিনিধি
মোবাইলঃ ০১৭৭০০৭০১১১

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আজকের দিন-তারিখ
  • রবিবার (সকাল ১১:২০)
  • ৩রা মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • ২২শে শাবান, ১৪৪৫ হিজরি
  • ১৯শে ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ (বসন্তকাল)
পুরানো সংবাদ
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১