বাবাকে পত্র দিয়ে ইলেকট্রনিক্স ডিভাইস বর্জন করল রুপন

 

মেহেদী হাসান, ফুলবাড়ী, দিনাজপুর প্রতিনিধি:
নাজমুল হাসান রতন তাঁর ১৩ বছর বয়সী ছেলে সাদমান সাকিব রুপনকে ইলেকট্রনিক্স ডিভাইস ব্যবহার করতে নিষেধ করেছিলেন। মোবাইলে গেম খেলা দেখা থেকে শুরু করে সকল প্রকার ইলেক্ট্রনিক্স ডিভাইস ব্যাবহার থেকে বিরত থাকতে বলেছিলেন তিনি। বাবার দেয়া সেই আদেশ পালন করতে হাতে লেখা পত্রের মাধ্যমে জানিয়ে দিয়েছেন শিক্ষার্থী সাদমান সাকিব রুপন। ছেলের সেই চিঠি ওছবি সহ
বাবা নাজমুল হাসান রতন নিজ ফেজবুক প্রফাইলে
একটি আবেগঘন স্ট্যাটাস দেন। বাবার দেয়া সেই স্ট্যাটাস ফেইসবুকে ভাইরাল হয়েছে। এবং এলাকায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে।
এ ঘটনা দিনাজপুরের ফুলবাড়ী উপজেলার পৌর শহরের পুর্ব গৌরীপাড়া গ্রামে।
ব্যবসায়ী নাজমুল হাসান রতন ও প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা শারমিন আক্তার দম্পতির একমাত্র ছেলে সাদমান সাকিব রুপন (১৩)। সে পৌর শহরের সুজাপুর সরকারি মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণীর শিক্ষার্থী। তার দাদু আবসরপ্রাপ্ত শিক্ষা অফিসার আব্দুল হামিদ এবং দাদী অবসরপ্রাপ্ত প্রাথমিক শিক্ষিকা এলিজা সুলতানা।
হাতে লেখা সেই চিঠিতে ছেলে সাদমান সাকিব রুপণ তার বাবাকে লিখেছেন,(“বাপু তোমার জন্য”) বাবা-মা সবসময় সন্তানের ভালই চায়,তোমার কথামত আমি ইলেক্ট্রনিক্স ডিভাইস সহমুহ বর্জন করেছি। তোমার দাবী তোমার আদেশ-উপদেশ মানতে আমি বাধ্য,কারন তুমি আমার বাবা। আমার পক্ষে যতটুকু সম্ভব আমি বিরত থাকব, সেইসব ইলেক্ট্রনিক্স ডিভাইস সমুহ থেকে যে গুলো তুমি নিষেধ করেছো। অতএব: অতি বিনয়ের সাঙ্গে জানাচ্ছি যে,তোমার দাবী আমি মানতে রাজী। “ইতি সাদমান সাকিব রুপণ” (বাপ্পু)।
সেই চিঠি পেয়ে তার বাবা নাজমুল হাসান রতন ওই চিঠিসহ তাদের ছবি ফেইসবুকে পোষ্ট করে ষ্ট্যাটাসে আবেগঘন বার্তায় লেখেছেন,আমার অস্তিত্ব,আমার স্বপ্ন,আমার অহংকার,আমার ছোট্ট হৃদয়ের সবটুকু অংশ জুড়ে যার বিচরণ,সে আমার ছেলে,আমার রুপন। জীবনের সত্যি কারের পূর্ণতা তখনি প্রাপ্তি হয় যখন কোন ছেলে বাবার আদর্শে বড় হয়। পার্থিব জীবনে এর চেয়ে বড় পাওয়া আর হতে পারেনা। এটা বিধাতা প্রাপ্ত এমন একটা খেলনা যা পরজীবনের পথ প্রশস্ত করে,যদি সে সঠিক থাকে। আর বাবা হিসেবে সন্তানের কাছে কিবা প্রাপ্তির থাকে। জীবনের প্রতিটি পদক্ষেপ যেন হয় শান্তির ও শৃঙ্খলার। “প্রত্যাশায় বাপু”
বিষয়টি নিয়ে কথা বললে ব্যবসায়ী নাজমুল হাসান রতন আজকের পত্রিকাকে জানান,ইলেক্ট্রনিক্স,ডিজিট্যাল ডিভাইসের যেমন সুফল রয়েছে,তেমনি এর কুফলও কম নয়। তাই তিনি তার ছেলেকে ইলেক্ট্রনিক্স,ডিজিট্যাল ডিভাইস ব্যবহার করতে নিষেধ করেছেন। কারন এই ডিভাইস গুলো ব্যবহারে সে অন্য মনস্ক হয়ে পড়বে,এতে তার পড়াশুনার ক্ষতি হবে।
তিনি বলেন,এগুলো ব্যবহারের একটা সময় এবং বয়স রয়েছে, যখন সে ভালোমন্দ বিচার করতে পারবে তখন সে এগুলো ব্যবহার করবে। তার কথামত আদেশ মেনে ছেলের এমন সিদ্ধান্তে তিনি সহ তার পরিবারের সবাই অত্যন্ত খুশি হয়েছেন।
শিক্ষার্থী সাদমান সাকিব রুপণ জানান, তার বা-মা কে তিনি অত্যন্ত সন্মান এবং শ্রদ্ধা করেন, তাই বাবার আদেশ পুরন করতেই তার এমন সিদ্ধান্ত। বাবা না বলা পর্যন্ত সে আর কখোনো ইলেক্ট্রনিক্স,ডিজিট্যাল ডিভাইস ব্যবহার করবেননা।

প্রেরক
মেহেদী হাসান
ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) প্রতিনিধি:
মোবাইল: ০১৭৭০০৭০১১১

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আজকের দিন-তারিখ
  • শনিবার (রাত ১:২২)
  • ১লা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  • ৫ই রবিউল আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরি
  • ১৬ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ (শরৎকাল)
পুরানো সংবাদ