যেভাবে গ্রাফিক ডিজাইনের ট্রেইনার হয়ে উঠলাম  – মুহাম্মদ আল আমীন

সকল মানুষই সফল হতে চায়। কিন্তু সাফল্যের এ পথ সব সময় মসৃণ হয় না। কখনও কখনও সফলতার গল্পের মাঝে কিছু ব্যার্থতার ধাপও লুকিয়ে থাকে। মনে আছে টমাস এডিসনের কথা, যিনি স্বপ্নের সিঁড়ি বাইতে গিয়ে বারবার ব্যর্থ হয়েছিলেন? পৃথিবীর অনেক সফল মানুষের মতই আমার ছোট এ সাফল্যের পেছনেও রয়েছে ব্যর্থতার বিশাল গল্পকথা। আজ আমি সে স্ট্রাগলিং স্টোরিই আপনাদেরকে শোনাবো।
আমি মুহাম্মদ আল আমিন, বর্তমান সময়ে ফ্রিল্যান্সার হিসাবে কাজ করছি ফাইভার, আপওয়ার্ক ও ৯৯ডিজাইনে। এছাড়াও ট্রেইনার হিসেবে গত দেড় বছর ধরে কাজ করছি Tech Park IT-তে। এর পূর্বে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের আইসিটি ডিভিশনের Learning and Earning Project (LEDP)-এ চাঁদপুর, নোয়াখালী, কুমিল্লা ও লক্ষ্মীপুর জেলার গ্রাফিক ডিজাইন কোর্সের ট্রেইনার হিসেবে ৫ শতাধিক শিক্ষার্থীকে গাইড করে তন্মধ্যে ৮০% শিক্ষার্থীকে সফল গ্রাফিক ডিজাইনার হতে সহযোগীতা করেছি। এর মধ্যে প্রায় ২ শতাধিক শিক্ষার্থী সফলতার সাথে Freelancing করে বিভিন্ন মার্কেটপ্লেসে কাজ করছেন। এছাড়াও বিভিন্ন সময়ে যুবউন্নয়ন, উপজেলাভিত্তিক বিভিন্ন প্রশিক্ষণ কার্যক্রমসহ বিভিন্ন আইটি ইনস্টিটিউটে ট্রেইনিং প্রদান করেছি।
আমার ট্রেইনার হয়ে উঠা এবং ফ্রিল্যান্সার হয়ে উঠার পিছনে আমার মেঝো মামার অবদান সর্বাগ্রে। আমি দাখিল পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পাওয়ার পর মামার দেওয়া সেই ল্যাপটপই আমার এ পথচলার সঙ্গী ছিল। এ ল্যাপটপকে সম্বল করে ২০১৬ সালে সরকারের আইসিটি ডিভিশনের LEDP-তে একজন শিক্ষার্থী হিসেবে আমার শ্রদ্ধেয় ট্রেইনার জাহাদুল ইসলাম ভাইয়ের কাছে Graphic Design শেখার হাতেখড়ি হয়। সেখানে ৪ মাসের কোর্স চলাকালীন আমি কোন উপার্জন করতে পারিনি; তবে তাই বলে আমি দমে যাইনি।
এরপর প্রজেক্ট থেকে আমাদের জন্য বিশেষভাবে আয়োজন করা হয় মেন্টরিং সেন্টারের। সেখানে আমরা প্রায় ২৭ জন শিক্ষার্থী টানা একমাস সারারাত জেগে কাজ করার দীর্ঘ সংগ্রামের পর আল্লাহর রহমতে আমরা ১২ জন সফল হই। সর্বপ্রথম আমি Fivrerr থেকে ১০ ডলারের কাজ পাই; যা সফলভাবে সম্পন্ন করি এবং প্রথমবারের সেই আয়ের যে আনন্দ, আসলেই তা ছিল অনন্য। সেই প্রথম আমার গ্রাফিক ডিজাইনের ফ্রিল্যান্সিং-এ আয় করা। এ সফলতাসহ অন্যান্য কাজে যতটুকু সফলতা এসেছে তার পেছনে ছিল রাত্রী জাগরণসহ অক্লান্ত অধ্যাবসায়। সে পরিশ্রম থেকেই শুরু হলো আমার ফ্রিল্যান্সি-এ পথচলা, যা এখনও চলছে হাটি হাটি পা পা করে। সফলতার হাত ধরেই বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় ফ্রিল্যান্সিং কমিউনিটি Fiverr Bangladesh Community-তে ভূমিকা রাখছি। একইসাথে Freelancer Association of Chandpur এর পরিচালনায় ভূমিকা রাখছি।
যুব উন্নয়ন প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে ২০১৯ সালে গ্রাফিক ডিজাইন শেখানোর সুযোগ পেলাম। শেখানোর মধ্যে যে পরম আনন্দ তা পুরোমাত্রায় অনুভব করে আরও বড় প্লাটফর্মে, বেশী সংখ্যক শিক্ষার্থীকে শেখানোর শখ তৈরি হলো মনে। তারই প্রেক্ষিতে LEDP-তে ট্রেইনার হওয়ার জন্য জন্য আমার ট্রেইনার জাহাদুল ভাই ও দেলোয়ার ভাইয়ের পরামর্শে ভাইভা দিলাম এবং আল্লাহর রহমতে টিকেও গেলাম। বড়ই আনন্দের ব্যাপার যে, যে প্রতিষ্ঠান থেকে শিখেছি, সেখানেই শেখানোর সুযোগ পাচ্ছি।
পরবর্তিতে চাঁদপুরসহ চারটি জেলার শিক্ষার্থীদের গ্রাফিক ডিজাইন শেখানোর দায়িত্ব পড়লো আমার কাঁধে। সেখানে সাফল্যের সাথে কয়েকটি ব্যাচ সম্পন্ন করার পরে চলে আসলাম রাজধানীর বুকে পুরো দেশ থেকে আসা শিক্ষার্থীদের শেখানোর লক্ষ্যে। তারই ধারাবাহিকতায় এখন Tech Park IT-তে শিখিয়ে যাচ্ছি দেশের নানান প্রান্তের শিক্ষার্থীদেরকে। আমার শিক্ষার্থীগণ কোর্স সম্পন্ন করছেন আর একেকজন সফল গ্রাফিক ডিজাইনার হয়ে উঠছেন, যেটা দেখে সত্যিই বুকটা ভরে যায়। যখন তাদের লোকাল মার্কেট বা ফ্রিল্যান্সিং থেকে প্রথম আয়ের সংবাদটা খুব এক্সাইটমেন্টের সাথে জানায়, তখন তাদের প্রত্যেকের আনন্দ যেন আমার আনন্দের ভান্ডারে আসে জমা হয়। মনে হয়, এখানেই ট্রেইনারের স্বার্থকতা।
যে কোন সফলতার পিছনে হার না মানা পরিশ্রম এবং দৃঢ় সংকল্প মূল হাতিয়ার, আমার ক্ষেত্রেও তাই হয়েছে। তাই নতুনদের কাছে নিবেদন থাকবে, যে দক্ষতাই শিখবেন মন দিয়ে দৃঢ় সিদ্ধান্ত নিয়ে শিখবেন। তাহলে আমরা সফল হতে পারবই পারব ইনশাআল্লাহ্।
লেখকঃ ট্রেইনার
গ্রাফিক ডিজাইন ডিপার্টমেন্ট
টেক পার্ক আইটি

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আজকের দিন-তারিখ
  • সোমবার (রাত ৮:৪৮)
  • ২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  • ৩০শে সফর, ১৪৪৪ হিজরি
  • ১১ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ (শরৎকাল)
পুরানো সংবাদ
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০