June 26, 2022, 3:10 pm

News Headline :
পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী উৎসব রাউজানে হাইমচরে পানিতে ডুবে শিশুর করুণ মৃত্যু হয়েছে। শিশুর মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে চিলমারীতে পদ্মা সেতু উদ্বোধন উপলক্ষে  আওয়ামী লীগের আনন্দ শােভাযাত্রা অনুষ্ঠিত।  পদ্মা সেতু উদ্বোধন উপলক্ষে ইউপি চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান গাজীর আনন্দ মিছিল ও অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ স্বপ্নের পদ্মা সেতু খুলে দেয়ায় পিরোজপুরে জেলা প্রশাসনের আয়োজনে আনন্দ র‌্যালী ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পদ্মা সেতু উদ্বোধন উপলক্ষে ফুলবাড়ী থানা পুলিশের আনন্দ শোভাযাত্রা গুগল ম্যাপেও স্বপ্নের পদ্মা সেতু পদ্মারপারে ‘পদ্মাকন্যা’ ঢাক-ঢোল পিটিয়ে জনসভার দিকে ছুটছে মানুষ, স্লোগানে মুখরিত পদ্মাপার

নতুন জামা নিয়ে বাড়ি ফেরা হলো না মা-সন্তানের

পলাশ (নরসিংদী) প্রতিনিধি : নরসিংদীর পলাশে শীতলক্ষ্যা নদীর নিজাম উদ্দিন খেয়াঘাট থেকে উদ্ধার হওয়া অজ্ঞাত শিশুর লাশের পরিচয় মিলেছে। উদ্ধার হওয়া লাশটি গাজীপুর জেলার কাপাসিয়া উপজেলার বিবাদিয়া গ্রামের আরিফা আক্তারের সাত বছর বয়সী মেয়ে মুর্শিদা আক্তারের। গতকাল বুধবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে শিশুর লাশ উদ্ধার করে মাধবদীর বঙ্গারচর নৌ পুলিশ।

মাধবদীর বঙ্গারচর নৌ পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ (পরিদর্শক) তরিকুল ইসলাম জানান, বুধবার রাতে পলাশে শীতলক্ষ্যা নদীর নিজাম উদ্দিন খেয়াঘাটে এক অজ্ঞাত শিশুর লাশ ভেসে থাকতে দেখে স্থানীয়রা পুলিশকে খরব দেয়। পরে নৌ-পুলিশ খবর পেয়ে ওই খেয়াঘাট থেকে শিশুর লাশ উদ্ধার করে তার পরিচয় শনাক্ত করে। উদ্ধার হওয়া শিশু মুর্শিদা আক্তারের লাশ তার মামা হেদায়েত উল্লাহর কাছে হস্তান্তর করা হয় এবং এ ঘটনায় কোনো মামলা হয়নি।

স্বজনরা জানান, রবিবার (১৯ জুন) দুপুরে গাজীপুর জেলার কাপাসিয়ায় সিংহশ্রী গ্রামের বরমা সেতু এলাকায় শীতলক্ষ্যা নদীতে আরিফা আক্তার নামে এক নারী তার দুই শিশু মেয়ে তাহমিদা আক্তার (৯) ও মুর্শিদা আক্তার (৭)-কে নিয়ে ঝাঁপ দিয়েছিলেন। পরে স্থানীয় জেলেরা তাহমিদা আক্তারকে জীবিত উদ্ধার করতে পারলেও মা আরিফা আক্তার ও মেয়ে মুর্শিদা আক্তারকে উদ্ধার করতে পারেনি।

খবর পেয়ে দুই দিন ধরে কাপাসিয়া ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল উদ্ধার কাজ চালিয়ে তাদের কোন সন্ধান পায়নি। তিন দিন পর বুধবার সন্ধায় পলাশের শীতলক্ষ্যা নদীর নিজাম উদ্দিন খেয়াঘাট এলাকায় শিশু মোর্শেদা আক্তারের লাশ ভেসে ওঠে। নৌ-পুলিশ এ লাশ উদ্ধার করে।

আরিফা আক্তারের ভাই এমারত হোসেন জানান, দশ থেকে বারো বছর আব্দুল মালেকের সঙ্গে তার বোন আরিফার বিয়ে হয়। বিয়ের পর তাদের সংসারে দুই মেয়ের জন্ম হয়। এর কিছুদিন পরে স্বামী আব্দুল মালেক মারা যান। এরপর থেকেই আরিফা অনেকটা অসহায় হয়ে পড়েন এবং তার মধ্যে মানসিক ভারসাম্যহীনতার কিছু লক্ষণ দেখা যায়।

উদ্ধার হওয়া শিশু তাহমিদা জানান, রবিবার সকালে মা জুতা, সিঙ্গারা ও জামা-কাপড় কিনে দেয়ার কথা বলে তাদের নিয়ে বাজারে যাওয়ার উদ্দেশ্যে বাড়ি থেকে বের হন। পরে তাদের নিয়ে শীতলক্ষ্যা নদীর তীরে এসে দু’জনকে দুই হাতে ধরে নদীতে ঝাঁপ দেন। ঝাঁপ দেয়ার পর মায়ের হাত ফসকে নদীতে থাকা বাঁশের মাচা ধরে কান্নাকাটি করতে থাকে তাহমিদা। এ সময় মাছ ধরতে আসা জেলেরা তাকে উদ্ধার করে।

নিউজটি শেয়ার করুন


© All rights reserved © greenbanglanews.com
Design, Developed & Hosted BY ALL IT BD