স্বপ্নজয়ের পদ্মা সেতুর নিরাপত্তায় বাংলাদেশ সেনাবাহিনী

নিউজ ডেস্কঃ

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশের যোগাযোগ ব্যবস্থা সহজ করার লক্ষ্যে বড় নদীগুলোর ওপর দিয়ে সেতু নির্মাণের স্বপ্ন দেখেছিলেন। সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নে তারই সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০০১ সালের ৪ জুলাই বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় এবং দেশের দক্ষিণ-পশ্চিম অঞ্চলের মানুষের স্বপ্নের পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। পরবর্তী সময়ে ২০১৫ সালে নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতুর নির্মাণ কাজ শুরু করার দূরদর্শী ও বলিষ্ঠ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন।

জাতির আস্থার প্রতীক বাংলাদেশ সেনাবাহিনী স্বাধীনতা-পরবর্তী বিভিন্ন সময়ে দেশের উল্লেখযোগ্য বিভিন্ন ভৌত অবকাঠামো নির্মাণে তাদের মেধা, প্রজ্ঞা, সততা ও নির্ভরশীলতার প্রতিফলন রেখে আসছে। একই সঙ্গে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা ও কোনো কোনো কেপিআইয়ের নিরাপত্তা কাজেও সেনাবাহিনী সম্পৃক্ত রয়েছে। যমুনা নদীর উপর নির্মিত বঙ্গবন্ধু সেতুর নিরাপত্তাকল্পে যেভাবে যমুনা পাড়ে গড়ে উঠেছে বঙ্গবন্ধু সেনানিবাস, সেভাবেই পদ্মার উভয় পাড়ে তৈরি হয়েছে শেখ রাসেল সেনানিবাস (মাওয়া-জাজিরা)।

এরই ধারাবাহিকতায় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে সেতু বিভাগের সঙ্গে সমন্বয়পূর্বক পদ্মা সেতু প্রকল্পের সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করা এবং বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ নির্মাণশৈলীতে ইঞ্জিনিয়ার পরামর্শক নিয়োগে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী পদ্মা সেতু প্রকল্পের সঙ্গে সরাসরি সম্পৃক্ত হয়। বাংলাদেশ সেনাবাহিনী কর্তৃক সম্পাদিত পদ্মা সেতু প্রকল্পের উল্লেখযোগ্য নিরাপত্তা দায়িত্বগুলো হলো- মাওয়া প্রান্তে ৭৭ বর্গ কিলোমিটার ও জাজিরা প্রান্তে ১৩২ বর্গ কিলোমিটার এলাকার নিরাপত্তা এবং সেতুর পূর্ব ও পশ্চিম প্রান্তে ৬ কিলোমিটার নদীপথ প্রত্যক্ষভাবে নজরদারিতে রাখা এবং সেতুর নির্মাণকাজ সংশ্লিষ্ট দেশি-বিদেশি ব্যক্তি, শ্রমিক, অতিথি এবং সব সরঞ্জামের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা।

পদ্মা সেতু প্রকল্পের নিরাপত্তা মূল্যায়ন এবং সেতু কর্তৃপক্ষ ও বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর মধ্যে স্বাক্ষরিত চুক্তি : জাতীয় নিরাপত্তা ও আর্থসামাজিক মূল্যায়নে পদ্মা সেতুর গুরুত্ব অপরিসীম। এটি এখন পর্যন্ত দেশের সবচেয়ে বড় ভৌত অবকাঠামো। এই সেতুর সঙ্গে বাংলাদেশের বলিষ্ঠ নেতৃত্ব, অর্থনৈতিক সক্ষমতা এবং জাতি হিসেবে উন্নয়নের অগ্রযাত্রায় এগিয়ে যাওয়ার সংকল্প প্রভাষিত। এই প্রেক্ষিতে পদ্মা সেতুর ওপর নির্মাণকালীন এবং নির্মাণ-পরবর্তী যে কোনো ঝুঁকি বা হুমকি জাতীয় নিরাপত্তার প্রতি হুমকি হিসেবে বিবেচ্য। পদ্মা সেতু দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১টি জেলার সঙ্গে শুধু সংযোগই করবে না, এটি এশিয়ান হাইওয়ে নেটওয়ার্ককে যুক্ত করবে। অন্যদিকে পায়রা, মংলা বন্দরসহ দক্ষিণের সব উৎপাদনশীল কলকারখানা, সংস্থা, প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে সরাসরি সংযোগ জাতীয় অর্থনীতি উন্নয়নে অভাবনীয় ভূমিকা রাখবে। কাজেই বাংলাদেশের অহংকার এবং জাতীয় অর্থনীতির উন্নয়নের বাহক এই বৃহৎ প্রকল্পের ওপর নির্মাণকালীন এবং নির্মাণ-পরবর্তী নাশকতা পরিকল্পনার বিষয়টি উড়িয়ে দেয়া সমীচীন হবে না।

শুরু থেকেই প্রকল্পের কাজে নিয়োজিত দেশি-বিদেশি (সর্বোচ্চ ১ হাজার ২৯৬ জন বিদেশি নাগরিক একই সময়ে ছিলেন) গুরুত্ব¡পূর্ণ ব্যক্তির ক্ষতিসাধন, প্রকল্প এলাকার ভেতর শ্রমিক অসন্তোষ, প্রকল্প-সংশ্লিষ্ট অতিমূল্যবান দ্রব্যসামগ্রী ও সরঞ্জাম পাচার অথবা ক্ষতিসাধন, সেতু সংলগ্ন অথবা নদী শাসন এলাকা হতে অবৈধ বালু উত্তোলন, ব্রিজের পিলারে নৌযানের ধাক্কা, প্রকল্প এলাকায় শ্রমিকদের মধ্যে মাদকের প্রভাব ইত্যাদি সম্ভাব্য ঘটনাগুলো প্রকল্পের ওপর প্রত্যক্ষ হুমকি ছিল।

এর পাশাপাশি পদ্মা সেতু প্রকল্প এবং তদসংলগ্ন এলাকায় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা, সড়ক দুর্ঘটনা, প্রকল্পের মালামাল পরিবহনে যানজট এবং অবৈধ চাঁদা আদায়, দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়া, শীতকালে নদীর নাব্যতা হারানোর মতো অনাকাক্সিক্ষত ঘটনাও পদ্মা সেতু প্রকল্পের কাজকে বিঘিœত করার সম্ভাবনা ছিল। এসব বিষয় বিবেচনায় নিয়ে পদ্মা সেতু প্রকল্পের নিরাপত্তা নিশ্চিতকল্পে বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষ এবং বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর মধ্যে সমঝোতা চুক্তি হয়, যার উল্লেখযোগ্য অংশ হলো মাওয়া ও জাজিরা এলাকায় স্থাপিত ৯৯ কম্পোজিট ব্রিগেড ভূমিতে এবং নদীতে পদ্মা সেতু প্রকল্পের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি এবং সরঞ্জামাদির নিরাপত্তা নিশ্চিতে প্রয়োজনীয় সংখ্যক স্থায়ী নিরাপত্তা চৌকি ও অস্থায়ী ক্যাম্প স্থাপন, দায়িত্বপূর্ণ এলাকায় ২৪ ঘণ্টা টহল ও নৌটহল পরিচালনা, মাওয়া-জাজিরা প্রান্তে এবং নদীপথে যে কোনো উদ্ভূত পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্য একটি করে ইমারজেন্সি রেসপন্স দল প্রস্তুত রাখা এবং সেতু কর্তৃপক্ষের সঙ্গে সমন্বয়পূর্বক প্রকল্প এলাকার বাইরে যে কোনো অনভিপ্রেত ঘটনা, যা সেতু প্রকল্পের নির্মাণকাজে প্রভাব ফেলতে পারে, তা নিরসনের জন্য কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আজকের দিন-তারিখ
  • শনিবার (রাত ৪:০৮)
  • ১৩ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  • ১৫ই মহর্‌রম, ১৪৪৪ হিজরি
  • ২৯শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ (বর্ষাকাল)
পুরানো সংবাদ
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১